‘ডিজিটাল বাংলাদেশ’ বিনির্মাণে বাংলাদেশের অগ্রগতির প্রশংসা এস্তোনিয়ার

164
image_printPrint

ঢাকা, ৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ (বাসস) : এস্তোনিয়া ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ’ বিনির্মাণে বাংলাদেশের অগ্রগতির প্রশংসা করেছে। সফররত এস্তোনিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী মি: এসভেন মিকস আজ রোববার সচিবালয়ে ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বারের সাথে তার কার্যালয়ে সাক্ষাতকালে এক বৈঠকে এ প্রশংসা করেন।
এস্তোনিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সেদেশের ৮ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দিচ্ছেন।
সাক্ষাৎকালে তারা পারস্পরিক স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন বিষয়াদি বিশেষ করে বাংলাদেশ ও এস্তোনিয়ার মধ্যে তথ্যযোগাযোগ প্রযু্িক্তর অগ্রগতির বিভিন্ন বিষয় নিয়ে মতবিনিময় করেন।
মোস্তাফা জব্বার, বাংলাদেশ ও এস্তোনিয়ার মধ্যে বিদ্যমান চমৎকার সম্পর্কের কথা উল্লেখ করে বলেন, এস্তোনিয়া ও বাংলাদেশের মধ্যে ঐতিহাসিকভাবে অনেক মিল রয়েছে। বাংলাদেশসহ এশিয়ার অধিকাংশ দেশ প্রথম তিনটি শিল্প বিপ্লব মিস করেছে। এস্তোনিয়াও এ তিনটি শিল্পবিপ্লবে শরীক হতে পারেনি।
তিনি বলেন,প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ চতুর্থ শিল্পবিপ্লব বা ডিজিটাল শ্ল্পি বিপ্লবে বিশে^ এখন নেতৃত্ব প্রদানকারী দেশের কাতারে উপনীত হয়েছে।
মন্ত্রী বাংলাদেশের তথ্যপ্রযুক্তির বিকাশে সরকারের গৃহীত বিভিন্ন কর্মসূচি তুলে ধরে বলেন, বাংলাদেশের জিডিপির শতকরা ৯৮ভাগ একসময় কৃষিখাত থেকে আসত। ১৯৯৬ থেকে ২০০১ সালে বাংলাদেশে মূলত ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপিত হয় এ কথা উল্লেখ করে মোস্তফা জব্বার বলেন,২০০৯ সাল থেকে গত সাড়ে ৯ বছরে এ খাতে অভাবনীয় অগ্রগতি অর্জিত হয়েছে। চলতি বছর শেষে দেশের প্রায় প্রতিটি ইউনিয়নে অপটিক্যাল ফাইভার পৌঁছে যাবে।
তিনি বলেন, বাংলাদেশ ৫৭তম স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণকারী দেশের মর্যাদায় ইতোমধ্যেই অধিষ্ঠিত হযেছে। ৫জি’র সফল পরীক্ষা সম্পন্ন করা হয়েছে। ডিজিটাল ডিভাইস উৎপাদন ও রপ্তানিতে বাংলাদেশ সফলতার স্বাক্ষর রাখছে। সরকারি ব্যবস্থাপনা ডিজিটালাইজ হচ্ছে।
মন্ত্রী বলেন, সরকারের বিনিয়োগ বান্ধব নীতির ফলে বাংলাদেশে বিনিয়োগ অত্যন্ত লাভজনক। তিনি আগামী দিনগুলোতে বাংলাদেশ ও এস্তোনিয়ার মধ্যকার বন্ধুপ্রতীম সম্পর্ক আরো সুদৃঢ় হবে বলেও আশাবাদ ব্যক্ত করেন।
মি: এসভেন মিকসের, এস্তোনিয়ায় তথ্যপ্রযুক্তির অগ্রগতির বিভিন্নদিক টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বারকে অবহিত করে বলেন. সাইবার নিরাপত্তাসহ ডিজিটাল অবকাঠামো উন্নয়নে এস্তোনিয়া কাজ করছে। তিনি ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণে বাংলাদেশের অগ্রগতিরও প্রশংসা করে বলেন, এখাতে বাংলাদেশের অগ্রগতির অভিজ্ঞতা অন্যদের অনুপ্রাণিত করবে।
অন্যান্যের মধ্যে এস্তোনিয়ার প্রেসিডেন্টের বিশেষ কূটনৈতিক প্রতিনিধি রাষ্ট্রদূত রিহো ক্রব এবং এশিয়া, আফ্রিকা, অস্ট্রেলিয়া, লেটিন আমেরিকা বিষয়ক পরিচালক ইনগ্রিদ আমের প্রতিনিধি দলে উপস্থিত ছিলেন।