বাসস ক্রীড়া-১৫ : পাকিস্তানকে হারিয়ে সেমি-ফাইনালের পথে আরো একধাপ এগিয়ে গেল বাংলাদেশ

বাসস ক্রীড়া-১৫
ফুটবল-সাফ-বাংলাদেশ-পাকিস্তান
পাকিস্তানকে হারিয়ে সেমি-ফাইনালের পথে আরো একধাপ এগিয়ে গেল বাংলাদেশ
ঢাকা, ৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮ (বাসস) : শক্তিশালী পাকিস্তানকে হারিয়ে সেমি-ফাইনালের পথে আরো একধাপ এগিয়ে গেল বাংলাদেশ। আজ বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত সাফ সুজুকি কাপ ফুটবল টুর্নামেন্টের গ্রুপ পর্বের দ্বিতীয় ম্যাচে ১-০ গোলে পাকিস্তানকে পরাজিত করেছে স্বাগতিকরা।
এ জয়ের চার দলের ‘বি’ গ্রুপে আপাতত শীর্ষস্থান দখল করেছে জেমি ডে’র শিষ্যরা। প্রথম ম্যাচে ভুটানকে ২-০ গোলে হারানোর পর আজ দ্বিতীয় ম্যাচে পাকিস্তানকে হারানোর ফলে পূর্ণ ছয় পয়েন্ট অর্জন করেছে বাংলাদেশ। অপরদিকে একটি করে ম্যাচে জয় পেলেও গোল ব্যবধানে এগিয়ে থেকে পয়েন্ট টেবিলের দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে নেপাল। সমান সংখ্যক তিন পয়েন্ট নিয়ে পাকিস্তানের অবস্থান তৃতীয়। টানা দুই ম্যাচ হেরে ইতোমধ্যে টুর্নামেন্ট থেকে ছিটকে পড়েছে গ্রুপের চতুর্থ দল ভুটান।
মাচের প্রথমার্ধে প্রতিদ্বন্দ্বী দল দু’টি তীব্র আক্রমণ ও প্রতি আক্রমণে ঘাম ঝড়ালেও গোল করার মত কোন আক্রমণই রচনা করতে পারেনি। দ্রুত গতির প্রথমার্ধের ম্যাচে কোন দলই পরিকল্পিত কোন আক্রমণ রচনা করতে পারেনি। যে কয়েকটি আক্রমণ রচিত হয়েছে সেগুলোকে ঝটিকা আক্রমণ বললেও ভুল হবে না। হয় জটলা থেকে, না হয় দূর পাল্লার শট থেকে প্রতিপক্ষের গোলরক্ষকের পরীক্ষা নেয়ার চেষ্টাই শুধু করে গেছে বাংলাদেশ ও পাকিস্তানের স্ট্রাইকাররা।
অবশ্য উল্লেখ করার মত প্রথম আক্রমণটি রচনা করেছে পাকিস্তান। ম্যাচের নবম মিনিটে পাকিস্তানী স্ট্রাইকার মোহাম্মদ আলীর হেডের একটি বল ফিস্ট করে বারের উপর দিয়ে পাঠিয়ে দেন বাংলাদেশ গোলরক্ষক শহিদুল আলম।
এসময় বাংলাদেশ মধ্য মাঠের নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠার বিপরীতে পাকিস্তান প্রতি আক্রমণের কৌশল অবলম্বন করে। তবে প্রতিপক্ষের সীমানায় গিয়ে খুব বেশি ভুল করেছে স্বাগতিক স্ট্রাইকাররা। অপরদিকে জেস রেহমানের নেতৃত্বে পাকিস্তান চেষ্টা করেছে গ্যাপ তৈরি করে স্বাগতিক রক্ষণভাগকে চাপে ফেলার। তবে কোন কৌশলই ফলপ্রসূ হয়নি। ফলে গোল খরার মধ্যে ইতি ঘটে প্রথমার্ধের।
প্রথমার্ধের তুলনায় দ্বিতীয়ার্ধে আরো বেশি সপ্রতিভ হয়ে উঠে জেমি ডে’রশিষ্যরা। এ সময় বাংলাদেশ বেশ ক’টি আক্রমণ রচনা করলেও প্রথমার্ধের মত প্রতি আক্রমণের দিকেই বেশি জোর দেয় পাকিস্তান।
৫২ মিনিটে বিশ্বনাথের থ্রো থেকে জটলায় বল পায় বাংলাদেশ। কিন্তু পাকিস্তানের শক্ত
ডিফেন্স ভাঙ্গতে ব্যর্থ হন মামুনুলরা। ৮২ মিনিটে বক্সের ডান প্রান্তে ফ্রি-কিক পায় বাংলাদেশ। মামুনুলের বাড়ানো বল পোস্টে রাখতে পারেননি তপু বর্মন। তবে মিনিট তিনেক পর কাজের কাজটি ঠিকই করে দেন তপু। ৮৫তম মিনিটে বাঁ প্রান্ত দিয়ে বিশ্বনাথ ঘোষের লম্বা থ্রো থেকে বক্সে দাঁড়ানো তপু হেড করে বাংলাদেশকে আনন্দে ভাসান (১-০)। শেষে এই ব্যবধানে জয় নিয়েই মাঠ ছাড়ে স্বাগতিকরা।
বাসস/এএসজি/এমএইচসি/২১৫০/মোজা/স্বব