নারীর আকাশে উজ্জ্বল ‘শুকতারা’

221
image_printPrint

॥ তাসলিমা সুলতানা ॥
ঢাকা, ৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ (বাসস) : ছোট থেকেই ভাবতেন ভিন্ন কিছু করার। সেই ভাবনা থেকেই বাবার অনুপ্রেরণায় এগিয়ে চলা। যার পরিচিতি এখন দেশ ছাড়িয়ে পড়েছে বিশ্বজুড়ে। নারীরাও যে বিশ্ব দরবারে সমান তালে ব্যাট-বল হাতে ক্রিকেটবিশ্ব ‘শাসন’ করতে পারে তা দেখিয়ে দিয়েছেন শুকতারা। তিনি বাংলাদেশ নারী ক্রিকেট দলের আয়শা রহমান শুকতারা।
স্কুল জীবন থেকেই ভলিবল-হ্যান্ডবলে ছিল তার পারঙ্গমতা। স্কুলেরই এক শিক্ষিকার পরামর্শে হাতে তুলে নেন ব্যাট-বল। পরিবারকে রাজি করানোর ভারও নেন ওই শিক্ষক। তবে বাবারও স্বপ্ন ছিল, যদি বাংলাদেশে কখনো নারী ক্রিকেট দল হয়, তার মেয়ে সেখানে খেলবে। বাবার স্বপ্নের পথেই যেনো পা বাড়ালেন মেয়ে শুকতারা। শুরু হলো ক্রিকেটের পানে ছুটে চলা।
ভাগ্য এতটাই পক্ষে ছিল যে, কিছুদিনের মধ্যেই খুলনা বিভাগে নারী ক্রিকেটার হান্ট শুরু হলো। শুকতারার থেকে যেনো তার বাবাই বেশি রোমাঞ্চিত এই খবরে। ফুটবলার বাবার মেয়ে ক্রিকেটার হবেন, এই স্বপ্ন তিনি সফল হতে দেখছিলেন খোলা চোখেই। নিজেই মেয়েকে নিয়ে গেলেন বাছাই পর্বের জন্য। বাছাই পর্ব পার হয়ে গেলেন খুব সহজেই। জাতীয় দলের পথটা গেল সহজ হয়ে।
বাছাই পর্ব পার হওয়ার পর একটি ওপেন টুর্নামেন্টে অংশ নিলেন শুকতারা। এরপরই এলো জাতীয় দলে খেলার সুযোগ। ভালোবাসা থেকে যে ক্রিকেটের শুরু সেটিই হয়ে গেল শুকতারার পেশা। অন্য কিছু করার আর চিন্তাই আসেনি মাথায়। হয়ে উঠলেন পুরোদস্তুর ক্রিকেটার।
ডানহাতি ব্যাটসম্যান শুকতারা ক্রিকেট খেলাটা বেশ উপভোগ করে চলেছেন। বাংলাদেশ দলের সদস্য হিসেবে সাম্প্রতিক সময়ে দেশে বিদেশে জয় নিয়ে ঘরে ফিরছেন তিনি।
বললেন, খুলনাকে অনেকেই ক্রিকেটের আঁতুরঘর বলেন। এখানে জন্ম মাশরাফি বিন মর্তুজাসহ বাংলাদেশের আরো অনেক তারকা ক্রিকেটারের। পারিবারিক উৎসাহ ও সামাজিক বাধা না থাকায় নিজেকে মেলে ধরতে পেরেছি।
২০০৭ সালে জাতীয় দলের হয়ে শুরু করলেও পথ যেনো সামনে এগোচ্ছিলো না। খেলছেন ঠিকই কিন্তু বের হতে পারছিলেন না হারের বৃত্ত থেকে। নারী ক্রিকেট নিয়ে নেই তেমন কোনো আলোচনা, নেই কোনো পরিকল্পনাও। তবু দলের প্রতিটি সদস্যের মতোই হাল ছাড়েননি শুকতারাও।
তার ভাষায়, সবার মনেপ্রাণে বিশ্বাস ছিল, এক দিন বাংলাদেশ নারী ক্রিকেট দল এমন কিছু করে দেখাবে যেখান থেকে শুধুই আলোই ছড়াবে, অন্ধকার আর ছুঁতে পারবে না তাদের।
আর সেই বিশ্বাস নিয়ে পথ চলার ফসল হিসেবেই যেনো পেয়েছেন এশিয়া কাপের শিরোপা, আয়ারল্যান্ড সিরিজ জয়, বিশ্বকাপ বাছাই পর্বে হয়েছে সেরা দল । শুকতারা অন্তত এটাই মনে করেন, দলের প্রতিটি সদস্যের অখ- বিশ্বাস, একাগ্রতা ও পরিশ্রমই আজকের নারী দলের সাফল্যের মূলমন্ত্র।
দলের খারাপ সময়টা যেমন দেখেছেন তেমনি দেখছেন ভালো সময়টাও। নিজের জায়গা নড়বড়ে হওয়াটাও দেখেছেন। ২০১৭ সালে দক্ষিণ আফ্রিকা সিরিজে বাদ পড়েন দল থেকে। সে বছর জায়গা হয়নি বিশ্বকাপ বাছাই পর্বেও। নিজেকে বুঝিয়েছেন। শক্ত থেকেছেন। পরিশ্রম করেছেন। আবারও ফিরেছেন দলে। নিজের দক্ষতা দেখিয়েছেন মারকুটে এই ব্যাটসম্যান।
এখন পাল্টে গেছে অনেক কিছুই। দল ও ক্রিকেটারদের উন্নতির পাশাপাশি নারী ক্রিকেট দলের প্রতি বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) চিন্তাধারায়ও এসেছে পরিবর্তন। বেড়েছে সুযোগ-সুবিধা। দেশের ও বিদেশে প্রিয় ক্রিকেটারের নাম জানতে চাইলে যেনো একটু দ্বন্দ্বেই পরে যান শুকতারা।
একটু ভেবে বললেন, ‘আসলে ফলো তেমন কাউকে করা হয় না তবে দেশের মধ্যে তামিম (ইকবাল) ভাইয়ের খেলা ভালো লাগে। দেশের বাইরে শচীন টেন্ডুলকার ও রিকি পন্টিং। দল হিসেবে তেমন কোনো দেশ প্রিয় নেই। আমি আসলে সব দেশের সব ধরনের ক্রিকেট দেখি। সেখান থেকেই অনেক কিছু শেখার চেষ্টা করি।’
মারকুটে এই ব্যাটসম্যান দারুণ একজন ফিল্ডারও। একই সঙ্গে একজন নারী, একজন স্ত্রী। ক্রিকেটার শুকতারার স্বামীও জড়িয়ে আছেন ক্রিকেটেই। বাংলাদেশ ‘এ’ দলের প্রশিক্ষক ইফতেখারুল ইসলাম। দু’জন মানুষ ক্রিকেট নিয়ে এতটাই ব্যস্ত সময় কাটান যে নিজেদের দেওয়ার মতো সময়টা পান না।
তাই ভবিষ্যতে নিজেদের সময় দিতে চান শুকতারা। ক্যারিয়ার শেষে জীবনটা নিজের মতো করে সাজিয়ে নিতে চান এই সফল নারী।
দেশজুড়ে নারী ক্রিকেটারদের উদ্ধুদ্ধ করার বিষয়ে শুকতারা বলেন, রুট লেভেলের ক্রিকেটার বাছাই করা জরুরি। দেশের আনাচে-কানাচে অনেক ভালো ভালো নারী ক্রিকেটার ছড়িয়ে রয়েছেন, যাদের খুজে বের করতে হবে। পাশাপাশি নারীদের প্রিমিয়ার লিগ, জেলা পর্যায়ে লিগ থেকেই আসতে পারে নতুন নতুন নারী ক্রিকেটার।
‘তাছাড়া জাতীয় দলের বাইরেও অনেক ক্রিকেটাররা অনুশীলন করেন, তাদেরকেও সঠিক সুযোগ দেওয়া প্রয়োজন,’ বলেন এই নারী ক্রিকেটার।
জানালেন, ভবিষ্যতে ক্রিকেটের সবচেয়ে সম্মানিত ফরম্যাট ‘টেস্টে’ সাদা পোশাকে দেখতে চান নিজেদের। সামনে নারী টি-২০ বিশ্বকাপ, আশা করছি ভালো কিছু। যা নারী দলকে আরও উচ্চতায় তুলে দেবে। র‌্যাংকিংয়ের আটে আসার লক্ষ্য নিয়েই বিশ্বকাপে পা রাখার পরিকল্পনা তাদের।
ক্যারিয়ার শেষের আগে এমনই একটি সিরিজের স্বপ্ন দেখেন শুকতারা যা তাকে বাংলাদেশের ক্রিকেট সমর্থকের মনে বাঁচিয়ে রাখবে অনেক দিন। নিজেকে নারী ক্রিকেটারদের মধ্যে এক নম্বরে প্রতিষ্ঠিত করার স্বপ্ন দেখছেন এই মারকুটে ব্যাটসম্যান।