নওগাঁয় আউশের আবাদ ও উৎপাদন বাড়ছে

222
image_printPrint

নওগাঁ, ২৬ আগস্ট ২০১৮ (বাসস) : জেলায় ক্রমেই আউশ ধানের আবাদ ও উৎপাদন বাড়ছে। সরকারিভাবে আউশ চাষ করতে কৃষকদের উৎসাহিত করার জন্য বিশেষ প্রণোদনা দেয়ার কারণেই আউশ চাষ বৃদ্ধি পেয়েছে বলেছে স্থানীয় কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তর।
এক সময় অতিরিক্ত ধান উৎপাদনের এ নওগাঁ জেলায় আউশের আবাদ ছিল খুবই জনপ্রিয়। সকালের খাবার তালিকায় বাডিতে বাড়িতে আউশ চালের পান্থাভাত ছিল খুবই লোভনীয়। বলা যায় তা ছিল আমাদের সংস্কৃতির অংশ। কিন্তু মাঝখানে এই আউশ ধানের চাষ প্রায় বন্ধ হয়েই পড়েছিল। বেশ কয়েক বছর ধরে প্রণোদনা দেয়ার ফলে আউশের আবাদ করতে কৃষকদের উৎসাহ বেড়েছে।
কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর নওগাঁ’র উপ-পরিচালক মনোজিত কুমার মল্লিক জানিয়েছেন বর্তমান সরকার কৃষকদের আউশ চাষে উৎসাহিত করতে প্রান্তিক চাষিদের বিনামূল্যে সার হিসেবে ইউরিয়া, পটাশ ডিএপি ও এমওপি, বীজ এবং জমির পরিচর্যা বাবদ নগদ অর্থ প্রণোদনা প্রদান করছে। এ কারণে জেলায় আউশ চাষের পরিমাণ বৃদ্ধি পাচ্ছে।
কৃষি বিভাগের হিসেব অনুযায়ী ২০১৫-১৬ বছরে জেলায় আউশের আবাদ হয়েছিল ৫৭ হাজার ২শ ৮০ হেক্টর জমিতে। এ বছর চালের আকারে আউশের উৎপাদন হয়েছিল ১ লাখ ৫৮ হাজার ৯২ মেট্রিক টন। ২০১৬-১৭ বছরে জেলায় আউশের আবাদ হয়েছিল ৫৮ হাজার ২শ ৪৩ হেক্টর জমিতে। এ বছর আউশের চাল উৎপাদিত হয়েছিল ১ লাখ ৬৬ হাজার ৩শ ৮৮ মেট্রিক টন। ২০১৭-১৮ বছরে জেলায় আউশের আবাদ হয়েছিল ৬১ হাজার ৮শ হেক্টর জমিতে। এ বছর চাল আকারে উৎপাদিত হয়েছিল ১ লাখ ৭৬ হাজার ১শ ৩০ মেট্রিক টন। চলতি ২০১৮-১৯ বছরে জেলায় আউশের আবাদ হয়েছে ৬৩ হাজার ৩শ ৫০ হেক্টর জমিতে। যেখান থেকে চালের আকারে ১ লাখ ৮০ হাজার ৫শ ৪৮ মেট্রিক টন চাল উৎপাদনের আশা করছে কৃষি বিভাগ।
কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের সূত্র মতে চলতি বছর জেলায় মোট ৬৩ হাজার ৩শ ৫০ হেক্টর জমিতে আউশ হয়েছে। এর মধ্যে উন্নতফলনশীল উফশী জাতের ৬২ হাজার ৯শ ৫১ হেক্টর জমিতে এবং হাউব্রীড জাতের আউশ চাষ হয়েছে ৮শ ১৯ হেক্টর জমিতে।
উপজেলা ভিত্তিক আউশ চাষের পরিমান হচ্ছে নওগাঁ সদর উপজেলায় ৫ হাজার ৫শ ৫৪ হেক্টর জমিতে। এর মধ্যে উফশী জাতের ৫ হাজার ২শ ৬০ হেক্টর ও হাইব্রিড জাতের ২৯৪ হেক্টর। রানীনগর উপজেলায় মোট ৩ হাজার ৩শ ১০ হেক্টর জমিতে আউশ চাষ হয়েছে। এর মধ্যে উফশী জাতের ৩ হাজার ২শ ৯০ হেক্টর ও হাইব্রিড জাতের ২০ হেক্টর জমিতে। আত্রাই উপজেলায় মোট ২ হাজার ৪শ ৫ হেক্টর জমিতে আউশ চাষ হয়েছে। এর মধ্যে ২ হাজার ৩শ ৯০ হেক্টর ও হাইব্রিড জাতের ১৫ হেক্টর জমিতে। বদলগাছি উপজেলায় মোট আউশ চাষ হয়েছে ৯শ ৪৫ হেক্টর জমিতে। এর মধ্যে উফশী জাতের ৯শ ৩৫ হেক্টর ও হাইব্রিড জাতের ১০ হেক্টর। মহাদেবপুর উপজেলায় মোট আউশ চাষের জমির পরিমাণ ১০ হাজার ৪শ ৫৭ হেক্টর। এর মধ্যে উফশী জাতের ১০ হাজার ৪শ ৩২ হেক্টর ও হাইব্রিড জাতের ২৫ হেক্টর জমিতে। পতœীতলা উপজেলায় মোট আউশ চাষ হয়েছে ৬ হাজার ৯শ ৫০ হেক্টর জমিতে। এর মধ্যে উফশী জাতের ৬ হাজার ৯শ ১৫ হেক্টর ও হাইব্রীড জাতের ৩৫ হেক্টর। ধামইরহাট উপজেলায় মোট আউশ চাষের পরিমাণ ২ হাজার ৯শ ৮০ হেক্টর। এর মধ্যে উফশী জাতের ২ হাজার ৮শ ২০ হেক্টর ও হাইব্রিড জাতের ১৬০ হেক্টর। সাপাহার উপজেলায় মোট আউশ চাষের পরিমান ৩ হাজার ৫শ ৪০ হেক্টর জমিতে। এর মধ্যে উফশী জাতের ৩ হাজার ৫শ ৩০ হেক্টর ও হাইব্রিড জাতের ১০ হেক্টর। পোরশা উপজেলায় মোট আউশের আবাদের পরিমাণ ১ হাজার ১শ ৯০ হেক্টর। পুরোটাই উফশী জাতের। মান্দা উপজেলায় মোট আউশ চাষ হয়েছে ১৭ হাজার ২শ ৭৯ হেক্টর জমিতে। এর মধ্যে উফশী জাতের ১৭ হাজার ৪৯ হেক্টর ও হাইব্রিড জাতের ২৩০ হেক্টর। নিয়ামতপুর উপজেলায় মোট আউশের আবাদ হয়েছে ৯ হাজার ১শ ৬০ হেক্টর জমিতে। এর মধ্যে উফশী জাতের ৯ হাজার ১শ ৪০ হেক্টর ও হাইব্রিড জাতের ২০ হেক্টর।
কৃষকরা এ বছর তাদের জমিতে সব চেয়ে বেশি আবাদ করেছেন ব্রিধান-৪৮, ব্রিধান-২৮, ব্রিধান-৫৫, পারিজা, জিরাশাইল এবং নেরিকা জাতের। এ বছর চালের আকারে সম্ভাব্য উৎপাদনের পরিমাণ আশা করা হচ্ছে ১ লাখ ৮০ হাজার ৫শ ৪৮ মেট্রিক টন।