পতিত জমিতে বৃক্ষরোপণের মাধ্যমে ভূমির সর্বোচ্চ ব্যবহার নিশ্চিত করুন : নারায়ণ চন্দ্র চন্দ

50
image_printPrint

খুলনা, ১১ আগস্ট ২০১৮ (বাসস) : মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী নারায়ণ চন্দ্র চন্দ বলেছেন, পতিত জমিতে বৃক্ষরোপণের মাধ্যমে ভূমির সর্বোচ্চ ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে।
একটি গাছ কাটলে কমপক্ষে তিনটি গাছ লাগানোর আহবান জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আগের তুলনায় মানুষ এখন বেশি বৃক্ষরোপণ করছে। প্রতিটি পরিত্যক্ত ও খালি জায়গায় গাছ লাগাতে হবে। শুধু বৃক্ষরোপণ করলেই হবে না এর সঠিক পরিচর্যা করতে হবে।’
আজ শনিবার খুলনা ফুলতলার বেজেরডাঙ্গা বাজার চত্ত্বরে উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর আয়োজিত মাসব্যাপী বৃক্ষমেলার উদ্বোধন ও সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এসব কথা বলেন।
নারায়ণ চন্দ্র চন্দ বলেন, ‘মানুষের মৌলিক চাহিদা পূরণের পাশাপাশি প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবিলা ও পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষাসহ নৈসর্গিক শোভা বর্ধনে বৃক্ষের অবদান রয়েছে।’
তিনি বলেন, মানুষের জীবন রক্ষা এবং সম্পদ সৃষ্টিতে বৃক্ষের গুরুত্ব অপরিসীম। বৃক্ষ স্থায়ী সম্পদ। ফলদ বৃক্ষরোপণের ওপর জোর দিতে হবে সকলকে। পরিবেশ ভারসাম্য রক্ষায় গাছ গুরুত্ব বহন করে। সকল ফল ও শাকসবজি বিষমুক্ত রাখতে হবে।
তিনি আরও বলেন, ‘মানুষের বেঁচে থাকার জন্য অক্সিজেন প্রয়োজন যা আমরা গাছ থেকে পাই, এজন্য বেশি করে গাছ লাগাতে হবে।’
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাশরুবা ফেদৌসের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন খুলনা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের অতিরিক্ত পরিচালক কৃষিবিদ নিত্যরঞ্জন বিশ্বাস। স্বাগত বক্তব্য রাখেন উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ মোছাঃ রীনা খাতুন।
এসময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি বিএমএ সালাম ও কৃষি বিষয়ক সম্পাদক মো. আসলাম খান, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার কাজী জাফর আহমেদ এবং উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মৃণাল হাজরা প্রমুখ।
এর আগে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী বৃক্ষমেলার বিভিন্ন স্টল পরিদর্শন করেন।মাসব্যাপী এই মেলায় সরকারি ও বেসরকারি মিলে ৫৩টি স্টল রয়েছে। মেলা চলবে প্রতিদিন সকাল নয়টা হতে রাত নয়টা পর্যন্ত।
পরে তিনি ফুলতলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে হাসপাতালের স্বাস্থ্য ব্যবস্থাপনা কমিটির সভায় যোগদান করেন। দুপুরে মন্ত্রী ফুলতলা এম এম কলেজের গর্ভনিং বডির সভায় এবং বিকালে গাড়াখোলা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভায় যোগদান করেন।