রাজশাহী জেলায় প্রাথমিক শিক্ষায় প্রায় ১০০ ভাগ শিক্ষার্থী অন্তর্ভুক্তি

243

রাজশাহী, ২২ জুলাই, ২০১৮ (বাসস) : জেলায় বিগত সাড়ে ৯ বছর যাবত সরকারের বিভিন্ন পরিকল্পনা বাস্তবায়নের ফলে প্রাথমিক শিক্ষায় প্রায় শতভাগ অন্তর্ভুক্তি সম্ভব হয়েছে।
জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা নাফিসা বেগম বলেন,‘ ইতোমধ্যেই্ প্রাথমিক স্কুলগুলোতে শতকরা ৯৯ দশমিক ৮ শতাংশ শিক্ষার্থীদের অন্তর্ভুক্ত করতে সক্ষম হয়েছি, বাকি ০ দশমিক ২ শতাংশকেও অতি শিগগির অন্তর্ভুক্ত করতে সক্ষম হবো।
জেলায় প্রাথমিক স্তরে শিক্ষার হার শতকরা ৯৩ দশমিক ৮৫ শতাংশ এবং মোট প্রাথমিক শিক্ষার্থীর সংখ্যা ২লাখ ৮৯ হাজার ৬৯৮ জন। ২০১৮ সালে ১৪ লাখ ৪৭ হাজার বই বিনামূল্যে ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে বিতরণ করা হয়েছে। প্রতি বছর ২ লাখেরও বেশি ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে ১৬ কোটি ৮২ লাখ টাকা বৃত্তি ও উপ-বৃত্তি প্রদান করা হয়। গত বছর জুলাই মাসের গোড়ার দিকে প্রথমবারের মতো সিটি কর্পোরেশন ও পৌর এলাকার সকল ছাত্রছাত্রীদের উপ-বৃত্তি সুবিধার আওতায় আনা হয়।
চলতি বছর এক সন্তানের পরিবারকে ১০০ টাকা দুই সন্তানের পরিবারকে ২০০ টাকা ও তিন সন্তানের পরিবারকে ২৫০ টাকা ও চার সন্তানের পরিবারকে ৩০০ টাকা পায়। চলতি বছর ১,৯৩০ জন ছাত্র বৃত্তি পেয়েছে। এদের মধ্যে ৫৩০ জন ট্যালেন্টপুলে, ১,৩০৪ জন সাধারণ ও ৯৬ জন সাপ্লিমেন্টারি বৃত্তি পেয়েছে।
নাফিসা বেগম বলেন, জেলায় ২৮৫ টি প্রাইমারি স্কুলে মাল্টিমিডিয়া ক্লাসরুম ও কম্পিউটার ল্যাবরেটরি সংযোজন করা হয়েছে। ৮২৯ শিক্ষক প্রয়োজন-ভিত্তিক আইটি প্রশিক্ষণ ও অপর ৯‘শো ৯৩ অটিজম নিউরো ডেভেলপমেন্ট ডিসঅর্ডার নিয়ে প্রশিক্ষণ প্রদান করে।
বর্তমান সরকার শিক্ষাখাতে ইপ্সিত লক্ষে অর্জনে বহুমাত্রিক পদক্ষেপ নিয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, সব স্কুলেই ৬ বছরের নীচে শিশুদেরও ক্লাস নেয়া হয়। এসব স্কুল শিশুদের সুস্বাস্থ্য, প্রতিভা ও মানসিক বিকাশের জন্যে বছরে ৫ হাজার টাকা করে পায়।
তিনি বলেন, এসব কারণেই ঝরে যাওয়ার হার বড় মাত্রায় কমে গিয়ে শতভাগ অন্তর্ভুক্তি সম্ভব হয়েছে।

image_printPrint