দুর্নীতি প্রতিরোধে শুদ্ধাচার কৌশল গ্রহণ করা হয়েছে : অর্থমন্ত্রী

54
image_printPrint

ঢাকা, ২৯ মার্চ, ২০১৮ (বাসস) : অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেছেন, দুর্নীতি প্রতিরোধে এবং জাতীয় শুদ্ধাচার বিকাশে দীর্ঘ মেয়াদি শুদ্ধাচার কৌশল গ্রহণ করা হয়েছে।
তিনি বলেন, এই জাতীয় শুদ্ধাচার কৌশল আমাদের আদর্শ। এটি বাস্তবায়ন করা সহজ বিষয় নয়। তবে আগামী কয়েক বছরের মধ্যেই দুনীতি কমে আসবে। এছাড়া দুর্নীতি দমন কমিশনের মামলা করার ক্ষেত্র কমে আসবে, তখন কমিশনকে শুদ্ধাচার বিকাশে প্রচার-প্রচারণায় অধিকতর গুরুত্ব দিতে হবে।
অর্থমন্ত্রী আজ দুর্নীতি প্রতিরোধ সপ্তাহ-২০১৮ উপলক্ষে শিল্পকলা একাডেমিতে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) আয়োজিত এক পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন।
অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন দুদক চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ ।
আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেন, আমার শৈশব, কৈশর এমন কি যৌবনের প্রারম্ভে শুধু খাবারের অভাবে মানুষের মৃত্যু দেখেছি। কিন্তু অভাবের কারণে আজকে কোনো লোক মারা গেছে, এমন কোনো ঘটনা এখন শোনা যায় না। দেশের মৌলিক পরিবর্তন এসেছে, কোনো মানুষ এখন আর অভাবে মারা যাচ্ছে না।
বর্তমানে কোনো সরকারি কর্মচারি ১৬ হাজার টাকার নিচে বেতন পান না জানিয়ে অর্থ মন্ত্রী বলেন, এখন যারা দুর্নীতি করে এটা তাদের অভ্যাস এবং লোভ। মানুষের এই অনৈতিক অভ্যাস বা লোভ পরিবর্তন করা প্রায় অসম্ভব। তবে প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখতে হবে।
সভাপতির বক্তব্যে দুদক চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ বলেন, দেশ অর্থনৈতিক এবং সামাজিক উন্নয়নের বিভিন্ন সূচকে এগিয়ে যাচ্ছে এটা সত্য। তবে এটাও সত্য দুর্নীতি নিয়ন্ত্রণ করা গেলে আরও এগিয়ে যাওয়া সম্ভব ছিল।
তিনি বলেন, দুর্নীতির বিরুদ্ধে গণসচেতনতা বৃদ্ধি, জনগণকে সংবেদনশীল করা, সর্বোপরি দুর্নীতির বিরুদ্ধে মানুষকে সোচ্চার হওয়ার জন্যই দুর্নীতি প্রতিরোধ সপ্তাহ পালন করা হচ্ছে।
দেশে কিছু দুর্বৃত্তের সীমাহীন লোভের কারণে যে দুর্নীতি হচ্ছে , তা প্রতিরোধে সম্মিলিত উদ্যোগের আহ্বান জানান দুদক চেয়ারম্যান।
অনুষ্ঠানে অন্যন্যের মধ্যে দুদক কমিশনার এ এফ এম আমিনুল ইসলাম, মহাপরিচালক (প্রতিরোধ) মো. জাফর ইকবাল, সাভার উপজেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সাধারণ সম্পাদক মো. সালাউদ্দীন নাইম প্রমুখ্য বক্তব্য রাখেন।
এরআগে দুদক মিডিয়া সেন্টারে দুদকের কর্মকর্তা-কর্মচারিদের স্বেচ্ছায় এক রক্তদান কর্মসূচির উদ্বোধন করেন দুদক চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ।