তরুণ দলটিকে নিয়ে দারুন আশাবাদী সাউথগেট

86

মস্কো, ১২ জুলাই ২০১৮ (বাসস) : ক্রোয়েশিয়ার কাছে সেমিফাইনালের অতিরিক্ত সময়ে ২-১ গোলে পরাজিত হয়ে ফাইনালে খেলার স্বপ্ন ভঙ্গ হয়েছে ইংল্যান্ডের। কিন্তু তারপরেও বিশ্বকাপে এ পর্যন্ত দলের পারফরমেন্সে দারুন খুশী কোচ গ্যারেথ সাউথগেট। তরুণ দলটি রাশিয়া বিশ্বকাপ থেকে যা কিছু অর্জন করেছে সেটাই ভবিষ্যতের পাথেয় হয়ে থাকবে বলে সাউথগেটের বিশ্বাস।
১৯৬৬ সালের পরে প্রথমবারের মত ফাইনাল খেলার স্বপ্ন নিয়েই কাল ক্রোয়েশিয়ার মুখোমুখি হয়েছিল তারুন্যনির্ভর ইংল্যান্ড। ম্যাচের ৫ মিনিটে এগিয়ে গিয়েও শেষ পর্যন্ত পরাজয় নিয়েই মাঠ ছাড়তে হয় ইংলিশদের। ম্যাচ শেষে সাউথগেট বলেছেন, আমি মনে করি প্রথমার্ধে আমরা দুর্দান্ত খেলেছি। হয়তবা ঐ সময় আরো একটি গোল হতে পারতো। আমি খেলোয়াড়দের কাছ থেকে এর বেশী কিছু আশা করতে পারিনা। নকআউট ফুটবল এমনই। একটি ভাল দলের বিপক্ষে সুযোগগুলো কাজে লাগাতে হয়। আজ আমরা ম্যাচের ঠিক সেই আবহটা বুঝতে পারিনি। কিন্তু এখান থেকে অবশ্যই আমরা শিক্ষা নিয়েছি। এখানেই আমরা সব কিছু শেষ করে দিতে চাই।’
সাউথগেট আরো জানিয়েছেন খেলোয়াড়রা দারুন হতাশ। কিন্তু এই তরুণ দলটিই ভবিষ্যতে ইংল্যান্ডের হয়ে অনেক কিছুই অর্জন করবে। দুই বছরের মধ্যে ইউরোপীয়ান চ্যাম্পিয়নশীপ দিয়ে তারা নতুন করে শুরু করতে চায়। ইংলিশ কোচ বলেন, ‘এই মুহূর্তে তাদের কি অনুভূতি তা নিয়ে কিছু বলা সত্যিই অসম্ভব। তবে আমরা যা অর্জন করেছি তা নিয়ে অবশ্যই আমাদের গর্বিত হওয়া উচিত। আমি মনে করি এর থেকে বেশী কিছু দেয়া কারো পক্ষেই সম্ভব ছিলনা। খেলোয়াড়রা বেশ পরিশ্রান্ত হয়ে পড়েছিল, তবে এটাই স্বাভাবিক। এখনো তাদের বয়স কম, শারিরিক ভাবে তারা এখনও পুরোপুরি পরিণত নয়। অন্যদিকে ক্রোয়েশিয়ার খেলোয়াড়রা বড় ম্যাচের আবহ বুঝে সেভাবেই খেলায় এগিয়েছে। বড় ম্যাচে অভিজ্ঞতাই একটি দলকে জয়ী হতে অনেক সহযোগিতা করে। এক্ষেত্রে তারা তাদের অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়েছে। গত কয়েক সপ্তাহের অভিজ্ঞতা তাদেরকে আরো বেশ শক্তিশালী করে তুলেছিল।’
ইংলিশ অধিনায়ক ও তারকা স্ট্রাইকার হ্যারি কেন এ পর্যন্ত বিশ্বকাপে ৬ গোল করে গোল্ডেন বুট অর্জনের ক্ষেত্রে বেশ ভালভাবেই এগিয়ে আছেন। ২৪ বছর বয়সী ইংলিশ অধিনায়ক সম্পর্কে সাউথগেট বলেছেন, ‘আমি মনে করি দলের জন্য সে সবকিছু দিয়ে খেলেছে। এখন আমাদের সামনে সময় এসেছে একটি দল হিসেবে নিজেদের শক্তিশালী করে তোলা। আগামী কয়েক দিনে নিজেদের ব্যক্তিগত পারফরমেন্সগুলো নিয়ে পর্যালোচনার করাটাও জরুরী। কেন দারুনভাবে ইংল্যান্ডকে নেতৃত্ব দিয়েছে। এর থেকে বেশী কিছু আশা করা যায়না।’
ইউরো ৯৬’র সেমিফাইনালে খেলা ইংল্যান্ড দলের সদস্য ছিলেন সাউথগেট। তারপর বড় কোন টুর্ণামেন্টে এটাই ইংল্যান্ডের সেরা পারফরমেন্স। সবচেয়ে অনভিজ্ঞ দল হিসেবেই ইংল্যান্ড রাশিয়া বিশ্বকাপে খেলতে এসেছিল। তাদের তরুন দলটির জাতীয় দলের জার্সি গায়ে খেলার অভিজ্ঞতা ছিল সবচেয়ে কম।
শনিবার বেলজিয়ামের বিপক্ষে তৃতীয় স্থান নির্ধারনী ম্যাচে সেন্ট পিটার্সাবার্গে মুখোমখি হবে ইল্যান্ড। গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচেও এই দুই দল একে অপরের মোকাবেলা করেছে। পরিবর্তিত ইংল্যান্ড দলটির বিপক্ষে ঐ ম্যাচে বেলজিয়াম ১-০ গোলে জয়ী হয়েছিল।

image_printPrint