সংসদে বালাইনাশক (পেস্টিসাইডস) বিল, ২০১৮ পাস

89
image_printPrint

সংসদ ভবন, ২ জুলাই, ২০১৮ (বাসস) : বালাইনাশক আমদানি, উৎপাদন, পুনঃউৎপাদন বিক্রয় বিতরণ ও ব্যবহার নিয়ন্ত্রণসহ আনুসাঙ্গিক বিষয়ে বিধান করে আজ সংসদে বালাইনাশক (পেস্টিসাইডস) বিল, ২০১৮ পাস করা হয়েছে।
কৃষিমন্ত্রী বেগম মতিয়া চৌধুরী বিলটি পাসের প্রস্তাব করেন।
বিলে বিদ্যমান পেস্টিসাইডস অধ্যাদেশ রহিত করা হয়।
বিলে নিবন্ধন ব্যতিত বালাইনাশক আমদানি, উৎপাদন, পুনঃউৎপাদন, মোড়কজাতকরণ পুনঃমোড়কজাতকরণ, বিক্রয় ও মজুত অথবা কোন প্রকার বিজ্ঞাপন প্রচার করা যাবে না বলে বিধান করা হয়।
বিলে নিবন্ধনের জন্য আবেদনের নিয়ম, নিবন্ধনের মেয়াদ, বিন্ধন নবায়ন, নিবন্ধন বাতিলসহ সংশ্লিষ্ট বিষয়ে বিধান করা হয়।
বিলে লাইসেন্স ব্যতিত, বালাইনাশক আমদানি, উৎপাদন, তৈরি, মোড়কজাত, পুনঃমোড়কজাত বিক্রয় ও বাণিজ্যিক ভিত্তিতে কীট প্রতঙ্গ নিয়ন্ত্রণের পদ্ধতি পরিচালনা এবং কোনো প্রকার বিজ্ঞাপন প্রচার করা যাবে না বলে বিধান করা হয়।
বিলে লাইসেন্সের আবেদন, লাইসেন্সের মেয়াদ, নবায়ন, লাইসেন্স হস্তান্তর, লাইসেন্স স্থগিত ও বাতিল, আমদানি নিয়ন্ত্রণ ও নিষিদ্ধকরণ, লেবেল ব্যবহারে বাধ্যবাধকতা, বালাইনাশকের সর্বোচ্চ বিক্রয় মূল্য নির্ধারণের ক্ষমতা, বালাইনাশক সংরক্ষণ ও ব্যবহার বালাইনাশক কারিগরি উপদেষ্টা কমিটি গঠন, বালাইনাশক গবেষণাগার, পরিদর্শক নিয়োগ ও তা ক্ষমতা-কার্যাবলীসহ সংশ্লিষ্ট বিষয়ে সুনির্দিষ্ট বিধান করা হয়।
এছাড়া বিলে বিধান লংঘনজনিত অপরাধে বিচার ও সুনির্দিষ্ট শাস্তি বিধান করা হয়।
জাতীয় পার্টির ফখরুল ইমাম ও বেগম রওশন আরা মান্নান বিলের ওপর জনমত যাচাই, বাছাই কমিটিতে প্রেরণ ও সংশোধনী প্রস্তাব আনলে তা কন্ঠ ভোটে নাকচ হয়ে যায়।