ইতালিকে হারানোর দিনে মেসির অনুপস্থিতি অনুভূত হয়নি

90

ম্যানচেস্টার, ২৪ মার্চ, ২০১৮ (বাসস) : ইংল্যান্ডের ইতিহাদ স্টেডিয়ামে শুক্রবার আন্তর্জাতিক প্রীতি ম্যাচে ইতালিকে ২-০ গোলে পরাজিত করেছে শিরোপা প্রত্যাশী আর্জেন্টিনা। যদিও ম্যাচটিতে খেলেননি সুপারস্টার লিওনেল মেসি। কিন্তু এভার বানেগা ও ম্যানুয়ের লানজিনির গোলে জয় নিশ্চিত করা আজেন্টাইনরা মেসির অনুপস্থিতি বুঝতে দেয়নি।
বৃহস্পতিবার অনুশীলনে কুঁচকির ইনজুরিতে পড়েছিলেন মেসি। সে কারনেই বিশ^কাপের প্রস্তুতিমূলক এই অনুশীলন ম্যাচে কোচ জর্জ সাম্পাওলি দলের মূল তারকাকে নিয়ে কোন ধরনের ঝুঁকি নিতে চাননি। বিশেষ করে ব্যস্ত ঘরোয়া সূচী ও বিশ^কাপকে সামনে রেখে সাম্পাওলি পাঁচ বারের ব্যালন ডি’অর বিজয়ীকে বিশ্রামে রাখাই ভাল মনে করেছেন। যদিও সুপারস্টারের অনুপস্থিতিতে ইতালিয়ানদেও বিপক্ষে আর্জেন্টিনা সুস্পষ্ট আধিপত্য বিস্তার করেই জয় তুলে নিয়েছে।
গত অক্টোবরে মেসির হ্যাটট্রিকে ইকুয়েডরের বিপক্ষে বাছাইপর্বের শেষ ম্যাচে বিশ^কাপ খেলা নিশ্চিত হয়েছিল আর্জেন্টিনার। বিশ^কাপের মূল পর্বে আর্জেন্টিনার প্রতিপক্ষ ক্রোয়েশিয়া, আইসল্যান্ড ও নাইজেরিয়া।
যেকোন মূল্যেই এবার আর বিশ^কাপ হাতছাড়া করতে চায়না গতবারের রানার্স-আপ দলটি। আর এজন্য অবধারিত ভাবেই মেসিকে তাদের দলে প্রয়োজন রয়েছে। ইনজুরির কারনে ইতোমধ্যেই সাইডলাইনে আছেন দলের আরেক তারকা ফরোয়ার্ড সার্জিও আগুয়েরো। তবে দলের অন্যদের নিয়েও কাল দারুন সন্তুষ্টি জানিয়েছেন সাম্পাওলি, ‘আমরা এই ম্যাচটি ফাইনাল হিসেবে খেলেছি। এই দলটির মধ্যে বর্তমানে দারুন ছন্দ রয়েছে, শেষ পর্যন্ত ম্যাচের সাথে মানিয়ে নেয়ার দক্ষতাও দারুন।’
থাইয়ের ইনজুরিতে আক্রান্ত হয়ে এ্যাঞ্জেল ডি মারিয়া ৬৪ মিনিটে মাঠ ত্যাগ করেন। আগামী সপ্তাহে স্পেনের বিপক্ষে পরবর্তী অনুশীলন ম্যাচটিতে তার খেলা নিয়ে শঙ্কা রয়েছে। এদিকে ১৯৫৮ সালের পরে প্রথমবারের মত বিশ^কাপের বাছাইপর্ব থেকে ছিটকে পড়া ইতালি এখনো সেই দু:সহ স্মৃতি ভুলে উঠে দাঁড়াতে পারেনি, যা তাদের পারফরমেন্সে সুস্পষ্ট ভাবে ধরা পড়েছে। একইসাথে ডিভেন্ডার ডেভিড আস্তোরিকে হারানোর পরে এটাই আজ্জুরিদের প্রথম ম্যাচ ছিল। যে কারনে ইতালিয়ানরা ম্যাচের আগেই বেশ আবেগপ্রবণ হয়ে পড়েছিল। চলতি মাসের শুরুতে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে নিজ হোটেল কক্ষে আকস্মিক মৃত্যু হয় আস্তোরির। ইতালি বস লুইকি ডি বিয়াজিও বলেছেন, ‘আমরা আর্জেন্টিনার বল পজিশনের নিয়ন্ত্রন বুঝতে পারিনি, যে কারনে প্রায়ই আমাদের সমস্যা হয়েছে। দ্বিতীয়ার্ধে আমরা ভাল খেলেছি। কিন্তু ভুলে গেলে চলবে না প্রতিপক্ষ কে ছিল। এই দলটিতে অনেক তরুন রয়েছে, যে কারনে তাদের অভিজ্ঞতার প্রয়োজন রয়েছে। আমাদের বুঝতে হবে কঠিন এক সময়ের মধ্যে আমরা যাচ্ছি। সবাইকে এজন্য ধৈর্য্য ধরতে বলা হয়েছে।’
অন্তর্বর্তীকালীণ কোচ হিসেবে বর্তমানে ইতালি জাতীয় দলের সাথে আছেন ডি বিয়াজিও। তার প্রথম দায়িত্বই ছিল অবসর ভেঙ্গে জুভেন্টাসের অধিনায়ক ও অভিজ্ঞ গোলরক্ষক গিয়ানলুইজি বুফনকে আবারো জাতীয় দলে ফিরিয়ে নিয়ে আসা। ইতালির জার্সি গায়ে ১৭৬ ম্যাচ খেলা বুফন কাল আবারো আজ্জুরিদের হয়ে মাঠে নেমেছিলেন। ম্যাচের শুরুতেই অবশ্য তাকে ডি মারিয়ার শট আটকাতে হয়েছে। নিকোলাস ওটামেন্ডির হেড রুখে দেয়া ছিল প্রথমার্ধে বুফনের সবচেয়ে সফল প্রচেষ্টা। তবে একেবারে শেষ মুহূর্তে জুভেন্টাসের সতীর্থ গঞ্জালো হিগুয়েইনের শট রুখে দিলেও পরবর্তীতে লাইনের উপর থেকে ফিরতি শট ক্লিয়ার করেন ড্যানিয়েল রুগানি।
আর্জেন্টিনা ও ইতালি দুই দল ছয়টি বিশ^কাপ জিতেছে, তারপরেও ম্যানচেস্টার স্টেডিয়ামে দুই দলের সমর্থনে খুব বেশী দর্শক দেখা যায়নি। দেশের বাইরে বলেই হয়ত সমর্থকদের মধ্যে এই অনীহা লক্ষ্য করা গেছে।
বিরতির পরে ইতালি নিজেদের কিছুটা ফিরিয়ে নিয়ে আসে। দ্বিতীয়ার্ধ শুরুর সাথে সাথে সিরো ইমোবিলের পাস থেকে লোরেনজো ইনসিগনে আর্জেন্টাইন গোলরক্ষক উইলি কাবালেরোকে একা পেয়েও গোল করতে পারেনি। নাপোলির এই ফরোয়ার্ডের শট পোস্টের অনেক দুর দিয়ে বাইরে চলে যায়। সমর্থকরা এরপর মেসিকে মাঠে দেখার জন্য চিৎকার শুরু করলেও তাদের আশা পূরণ হয়নি। ইমোবিলের শট দারুনভাবে আটকে দিয়ে আরেকবার আর্জেন্টিনাকে রক্ষা করেছেন চেলসি গোলরক্ষক কাবালেরো। কিন্তু ৭৫ মিনিটে আর শেষ রক্ষা হয়নি ইতালির। সংঘবদ্ধ একটি আক্রমন থেকে সেভিয়া মিডফিল্ডার বনেগা লো স্ট্রাইকে বুফনকে পরাজিত করলে এগিয়ে যায় আর্জেন্টিনা। ৮৫ মিনিটে ১৮ গজ দুর থেকে ওয়েস্ট হ্যামের লানজিনি ব্যবধান দ্বিগুন করার পাশাাশি আর্জেন্টিনার জয় নিশ্চিত করেন।

image_printPrint