আয়কর আপিল ট্রাইব্যুনালগুলোতে একজন জেলা জজ নিয়োগ দেয়া উচিত : আইনমন্ত্রী

79

ঢাকা, ১৫ সেপ্টম্বর, (২০১৯) : আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, আয়কর আপিল ট্রাইব্যুনালগুলোতে একজন জেলা জজ নিয়োগ দেয়া উচিত।
আইন মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে বাংলাদেশ ট্যাক্স ল’ ইয়ার্স এসোসিয়েশনের নেতৃবৃন্দের সঙ্গে বৈঠককালে তিনি এ কথা বলেন।
কায়কর আইনজীবীরা আইনমন্ত্রীকে অবহিত করেন যে, ‘১৯৮৪ সালের আয়কর অধ্যাদেশ অনুযায়ী আয়কর আপীল ট্রাইব্যুনালে জেলা জজসহ অন্যান্য পদবীর লোক নিয়োগের বিধান রয়েছে। কিন্তু বর্তমানে শুধু দু’জন কর কমিশনার দিয়ে বেঞ্চ গঠন করে কায়কর আপীল মামলার বিচার কাজ চলছে।’
তারা প্রত্যেক ট্রাইব্যুনালে একজন করে জেলা জজ নিয়োগের দাবির প্রেক্ষিতে আনিসুল হক বলেন, তিনি এ বিষয় শিগগিরই প্রধান বিচারপতির সঙ্গে আলোচনা করে দেশের আটটি আয়কর আপীল ট্রাইব্যুনালে আট জন জেলা জজ নিয়োগের ব্যবস্থা করবেন।
এ সময় তিনি তিন সদস্যের ট্রাইব্যুনাল গঠনের মতামত দেন। এদের মধ্যে একজন হবেন জেলা জজ বা জেলা জজ পদ মর্যাদার বিচার বিভাগীয় কর্মকর্তা, আয়কর বিভাগের কর্মকর্তা হবেন একজন এবং আয়কর আইনজীবী থাকবেন একজন।
বৈঠকে এসোসিয়েশনের নেতৃবৃন্দ ছাড়াও লেজিসলেটিভ ও সংসদ বিষয়ক বিভাগের সিনিয়র সচিব মোহাম্মদ শাহিদুল হক, আইন ও বিচার বিভাগের সচিব মো. গোলাম সারওয়ার উপস্থিত ছিলেন।
বৈঠকে এসোসিয়েশনের নেতৃবৃন্দ ১৯৮৪ সালের আয়কর অধ্যাদেশকে আইনে পরিণত করা, বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের আদলে বাংলাদেশ ট্যাক্স বার কাউন্সিল গঠন করা, আয়কর আপীল ট্রাইব্যুনালকে অর্থ মন্ত্রণালয়ের পরিবর্তে পুনরায় আইন মন্ত্রণালয়ের অধীনে ন্যাস্ত করা, প্রত্যেক ট্রাইব্যুনালে জেলা জজ পর্যায়ের একজন করে বিচার বিভাগীয় কর্মকর্তা নিয়োগ, অধস্তন ও উচ্চ আদালতের মতো আয়কর আপীল ট্রাইব্যুনালে ও আয়কর আইনজীবীদের মধ্য হতে আইন কর্মকর্তা নিয়োগসহ বিভিন্ন দাবি উত্থাপন করেন।
আয়কর আদায়ে আইনজীবীদের সহযোগিতা কামনা করে মন্ত্রী বলেন, প্রয়োজন হলে আয়কর আইনজীবীদের প্রশিক্ষণ দেয়া হবে, অভিজ্ঞতা অর্জনের জন্য তাদের বিদেশে পাঠানো হবে।
মন্ত্রী আয়কর আইনজীবীদের আয়কর আইন বিষয়ক আরো অধিক জ্ঞান অর্জনের পরামর্শ দিয়ে বেশি বেশি বই পড়ার পরামর্শ দেন। এ সময় আয়কর বিষয়ক বই কেনার জন্য বাংলাদেশ ট্যাক্স ল’ ইয়ার্স এসোসিয়েশনকে ৫ লাখ টাকার অনুদান দেয়ারও ঘোষণা দেন তিনি।

image_printPrint