চট্টগ্রামে তাজিয়া মিছিলে ছিল ভক্তদের ঢল

53

চট্টগ্রাম, ১০ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ (বাসস) : পবিত্র আশুরা উপলক্ষে প্রতিবছরের মতো এবারও চট্টগ্রাম নগরের সদরঘাট ইমামবাড়া ও খুলশি ওয়্যারলেস কলোনি থেকে পৃথক তাজিয়া মিছিল বের হয়েছে। দ’ুটি তাজিয়া মিছিলেই ছিল ভক্তদের ঢল ও শোকের মাতম।
এছাড়া পবিত্র আশুরা উপলক্ষে চট্টগ্রামে বিভিন্ন ধর্মীয় সংস্থা মহররমের প্রথমদিন থেকে আহলে বাইত স্মরণে মাহফিলের আয়োজন করে আসছে। জমিয়তুল ফালাহ জাতীয় মসজিদে ১০ দিনব্যাপী শাহাদাতে কারবালা মাহফিলসহ বিভিন্নস্থানে ৫ দিন, ৩ দিন ধরে ধর্মীয় মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়ে আজ শেষ হচ্ছে। আজ চট্টগ্রামের মসজিদসমূহে আশুরা উপলক্ষে মাহফিল, দোয়া, মুনাজাত করা হয়। ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা দু’দিন নফল রোজা পালন করেন। গরিব-মিসকিনদের মাঝে উন্নতমানের খাবার বিতরণ করা হয়েছে চট্টগ্রামের বিভিন্ন স্থানে।
আজ বেলা ১০টা থেকে সদরঘাট ইমামবাড়া থেকে জুলুস সহকারে মিছিলটি বের হয়। এতে নেতৃত্ব দেন মাওলানা আমজাদ। মিছিলে অংশগ্রহণকারী ভক্তদের পরনে ছিল কালো পোশাক। মিছিলের সামনে ও পেছনে বিপুলসংখ্যক পুলিশ ছিলো। মিছিলটি চট্টগ্রাম নগরের নিউমার্কেট, জিপিও, কোতোয়ালি মোড় ঘুরে আবার সদরঘাট ইমামবাড়ায় ফিরে যায়।
চট্টগ্রাম নগরীর সদরঘাট ইমামবাড়া থেকে বের হওয়া মিছিলে ঢল নামে মানুষের। বুক চাপড়ে, ‘হায় হোসেন, হায় হোসেন’ মাতমে ফোরাত তীরের কারাবালার ঘটনাকে স্মরণ করেন তারা। এতে অংশগ্রহণকারীদের অনেকের পরনেই কালো পাজামা-পাঞ্জাবি দেখা যায়। হাতে হাতে ছিল ঝালর দেওয়া লাল, কালো, সবুজ ঝা-া।
তবে গতবারের মতো এবারও মিছিলে অস্ত্র, লাঠি ও আগুনসহ জিঞ্জিরা দিয়ে রক্তপাত নিষিদ্ধ করে চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশ। এছাড়া যেকোনো ধরনের ধাতব বস্তু বা আতশবাজি ব্যবহারের ওপরও নিষেধাজ্ঞা ছিল।
সদরঘাট থেকে বের হওয়া তাজিয়া মিছিলে মাওলানা আমজাদ বলেন, আশুরার শিক্ষা হচ্ছে ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে। পরস্পরের প্রতি ভ্রাতৃত্ববোধ বজায় রাখতে হবে। যত কঠিন বিপদই আসুক না কেন অসত্যের সঙ্গে আপস করা যাবে না।
অন্যদিকে দুপুরে খুলশী ওয়্যারলেস কলোনি এলাকা থেকে সুন্নিয়া তাজিল মিছিল নামে আরেকটি মিছিল শুরু হয়। সেখানেও ভক্তদের ঢল দেখা যায়। মিছিলে বিভিন্ন ধর্মীয় স্থাপনার প্রতিকৃতি ছিলো। মিছিলটি নগরের নিউমার্কেট মোড় ঘুরে আবার খুলশী ওয়্যারলেস কলোনি গিয়ে শেষ হয়।

image_printPrint