এমন বিরতি দরকার ছিলো : মোসাদ্দেক

192

বার্মিংহাম, ২৯ জুন, ২০১৯ (বাসস) : আগামী ২ জুলাই বার্মিংহামে ভারতের বিপক্ষে বাংলাদেশের গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচ। দ্বাদশ বিশ্বকাপে লিগ পর্বে এটি হবে টাইগারদের অষ্টম ম্যাচ। তার আগে চারদিনের বিশ্রাম পেয়েছে বাংলাদেশের ক্রিকেটাররা। গত ২৪ জুন সাউদাম্পটনে আফগানিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচের পর থেকেই ক্রিকেট থেকে দূরে রয়েছে। ভারতের বিপক্ষে ম্যাচের জন্য ২৫ জুন বার্মিংহামে পা রাখে বাংলাদেশ। এরপর চারদিনের ছুটি পেয়ে যে যার মত ঘুুড়ে বেরিয়েছেন। আগামীকাল থেকে আবারো অনুশীলনে নেমে পড়তে হবে মাশরাফি-তামিম-সাকিবদের। লিগ পর্বে শেষ দু’টি গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচের আগে চারদিনের এই বিরতিটি খুব বেশি প্রয়োজন ছিলো বলে মনে করেন বাংলাদেশের ডান-হাতি ব্যাটসম্যান মোসাদ্দেক হোসেন।
ভারতের বিপক্ষে ম্যাচের আগে আজ বার্মিংহামে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে মোসাদ্দেক বলেন, ‘অনেকদিন ধরে দেশের বাইরে আছি আমরা। সেই আয়ারল্যান্ডের ত্রিদেশীয় সিরিজে থেকে টানা খেলে আসছি। আসলে যেভাবে টানা ম্যাচ খেলছিলাম, এমন বড় টুর্নামেন্টের মাঝে একটা বিরতি দরকার ছিল। সেটা সবাই কাজে লাগিয়েছে। সবাই এখন হোটেলে ফিরে আসছে। কাল থেকে অনুশীলন শুরু হবে। এই বিরতিটা বেশ দরকার ছিলো।’
ছুটি কাটিয়ে ফেরায় দলের সকলেই বেশ ফুরফুরা মেজাজে রয়েছে। এখন ভারতের বিপক্ষে ম্যাচ নিয়ে সবাই বেশি ভাববে বলে মনে করেন মোসাদ্দেক, ‘সবাই ছুটি কাটিয়ে ফুরফুরে মেজাজে হোটেলে ফিরছে। কাল থেকে অনুশীলন শুরু হবে, এখন আমাদের অন্য কিছু চিন্তা করার সুযোগ নেই। আমাদের সবার মনোযোগ থাকবে ভারতের বিপক্ষে ম্যাচ নিয়ে।’
আয়ারল্যান্ডের ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনালে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে মাত্র ২৭ বলে ২টি চার ও ৫টি ছক্কায় বিধ্বংসী ইনিংস খেলে বাংলাদেশকে প্রথমবারের মত কোন টুর্নামেন্টের শিরোপা এনে দেন মোসাদ্দেক। তাই বিশ্বকাপের শুরু থেকেই দলের অপরিহার্য খেলোয়াড় বনে যান তিনি। মোসাদ্দেক বলেন, ‘আয়ারল্যান্ডে ভালো করেছি। তবে বিশ্বকাপে আসার পর অতীত নিয়ে চিন্তা করিনি। এখানে যখন আসি, নিয়মিত খেলার মানসিকতা নিয়েই এসেছি। সুযোগের অপেক্ষায় ছিলাম। যখন সুযোগ পেয়েছি, চেষ্টা করেছি ভালো করার। বাড়তি কিছু করতে চাইনি। সামনে যে ম্যাচগুলো আছে চেষ্টা করবো ভালো করতে।’
আয়ারল্যান্ড সিরিজ থেকেই সাতে ব্যাটিং করে আসছেন মোসাদ্দেক। তারপরও দলের প্রয়োজন ভালোই মিটাচ্ছেন তিনি। তবে এই পজিশনে ব্যাটিং করা চ্যালেঞ্জিং বলে মনে করেন মোসাদ্দেক, ‘সাতে ব্যাটিং শুধু আমার জন্য নয়, সবার জন্যই চ্যালেঞ্জিং। সময় বেশি থাকে না। দ্রুত মানিয়ে নিয়ে, তাড়াতাড়ি রান তুলতে হয়। আমি চেষ্টা করেছি। ভাবনা ছিল, যখনই উইকেটে যাই একশর বেশি স্ট্রাইক রেটে ব্যাট করার।’
ব্যাটিং-এর পাশাপাশি বোলিং-এও ভালো করছেন মোসাদ্দেক। প্রয়োজনীয় সময়ে দলকে সাফল্য এনে দিচ্ছেন তিনি। তাই অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ম্যাচে মোসাদ্দেকের অভাব বেশ ভালোই অনুভব করেন বাংলাদেশ অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা। ঐ ম্যাচে ইনজুরির কারনে খেলতে পারেননি মোসাদ্দেক। নিজের পারফরমেন্সে দল খুশী হওয়ায় মোসাদ্দেকও তৃপ্ত বলেন জানান, ‘বোলিংয়ে আমি নিজের ভূমিকা খুব ভালোভাবে জানতাম। হয়তো ৬-৭ ওভার বোলিং পাব, উইকেটের চেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ হলো- রান আটকানো। আমি সেভাবেই চেষ্টা করে যাচ্ছি। বাড়তি কিছু করতে চাই না। আমি খুশি যে দলের চাওয়া মতো অবদান রাখতে পারছি। চেষ্টা করব সামনে আরও ভালোভাবে করার।’
আগামীকাল ইংল্যান্ডের মুখোমুখি হবে ভারত। ঐ ম্যাচে ভারতকে সমর্থন করবে বাংলাদেশ। কারন ভারত জিতলে বাংলাদেশের সেমিফাইনালে খেলার আশা ভালোভাবে বেঁেচ থাকবে। কিন্তু ভারতের বিপক্ষে ম্যাচে আবার নিজেদের জয় কামনা বাংলাদেশের। তাই বিষয়টি কিভাবে দেখছেন মোসাদ্দেক, ‘আসলে ব্যাপারটা স্বার্থপরের মতো হয়ে যায়। যে দলের জয়ে আমাদের লাভ হয় তাকেই সমর্থন করব।’
তারপরও ভারতের বিপক্ষে ভালো খেলার প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন মোসাদ্দেক, ‘ভারত অবশ্যই শক্তিশালী প্রতিপক্ষ। আমারা যে ক্রিকেট খেলছি, সেটা খেলতে পারলে ভালো ফল হবে।’

image_printPrint