চট্টগ্রামের বিনোদন কেন্দ্রে প্রাণচাঞ্চল্য বেড়েছে

195

চট্টগ্রাম, ৬ জুন ২০১৯ (বাসস) : ঈদুল ফিতর উপলক্ষে বন্দরনগরী চট্টগ্রামে বিনোদন কেন্দ্রগুলোতে প্রাণচাঞ্চল্য বেড়েছে।
চিড়িয়াখানা ও পার্কে এখন উৎসবমুখর পরিবেশ। ঈদের পরদিন বৃহস্পতিবার বেড়াতে বের হয়েছেন নগরীতে ঈদ উদযাপনকারী লোকজন। ইট-কাঠ-পাথরের এই নগরীতে একটু স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলতে বাহির পানে ছুটছে সবাই।
বৃহস্পতিবার দুপুর থেকে নগরীর পতেঙ্গা সমুদ্র সৈকত, কাজীর দেউড়ী শিশু পার্ক, চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানা, ফয়’স লেক, বহদ্দারহাটের স্বাধীনতা পার্ক, আগ্রাবাদের কর্ণফুলী শিশু পার্ক, পতেঙ্গা বাটারফ্লাই পার্কে দর্শনার্থীদের ভিড় বেড়েছে।
শিশু পার্কে বেড়াতে আসা চন্দনপুরার বাসিন্দা ব্যবসায়ী শাহজাহান খান বলেন, ‘ছোটরা বায়না ধরেছে শিশুপার্কে যাবে তাই চলে এলাম। বাচ্চারা বিভিন্ন রাইডে চড়ে বেশ আনন্দ পাচ্ছে। আসলে ছেলে-মেয়েদের আনন্দই আমাদের আনন্দ।’
বিভিন্ন প্রজাতির প্রাণী দেখতে চিড়িয়াখানায় শিশু থেকে শুরু করে নানা বয়সী লোকজনের ভিড় চোখে পড়ার মত। নবরূপে সজ্জিত করায় চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানায় এবার দর্শনার্থীদের আনাগোনায় মুখর।
চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানার ভারপ্রাপ্ত কিউরেটর ডা. শাহাদাৎ হোসেন শুভ জানান, ঈদের দিন প্রায় ১১ হাজারের মতো টিকেট বিক্রি হয়েছে। আজ সকাল থেকেই প্রচ- ভিড়। ২০ হাজার দর্শনার্থী আজ পাবেন বলে তার আশা।
চান্দগাঁও এলাকার স্বাধীনতা পার্কও বৃহস্পতিবার সকাল থেকে দর্শনার্থীদের ভিড় শুরু হয়েছে। ঈদুল ফিতর উপলক্ষে পার্ক সাজানো হয়েছে নতুনভাবে। সংস্কার করা হয়েছে রিভলবিং টাওয়ারও। আলোকসজ্জা করা হয়েছে প্রতিটি স্থাপনায়। নতুন করে পাঁচটি পানির ফোয়ারা চালু করা হয়েছে। নৌকাভ্রমণের ব্যবস্থাও হয়েছে।
প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের আধার ফয়’স লেক অ্যামিউজমেন্ট পার্কেও বিনোদনপ্রেমী মানুষের জন্য ছিলো নানা আয়োজন। ফয়’স লেকের ফ্যামিলি রোলার কোস্টার, বাম্পার কার, ফেরিস হুইল, রেড ড্রাই ইড, কফিকাপ, সার্কাস সুইং, পাইরেট শিপ, ইয়োলো ড্রাই রাইডে চড়ে ঈদ আনন্দে মেতে উঠেন অনেকে।
ফয়’স লেকের জনসংযোগ কর্মকর্তা বিশ্বজিত ঘোষ জানান, ‘ঈদের ছুটিতে বেড়ানোর জন্য ফয়’স লেকই চট্টগ্রামবাসীর প্রথম পছন্দ। এখানে প্রকৃতির অনাবিল সৌন্দর্য দেখার সুযোগ রয়েছে। সবচেয়ে বড় বিষয় এখানকার নিরাপত্তা ব্যবস্থা পর্যাপ্ত।’
এদিকে ঈদের ছুটিতে বিনোদন কেন্দ্রগুলোতে যাতে মানুষ নির্বিঘেœ চলাচল করতে পারে সে বিষয়ে ব্যবস্থা নিতে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী প্রস্তুত রয়েছে।
চট্টগ্রাম মেট্টোপলিটন পুলিশের (সিএমপি)অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (অপরাধ এবং অভিযান) আমেনা বেগম বলেন, ‘পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে সিএমপির পক্ষ থেকে চট্টগ্রাম নগরীতে বিশেষ নিরাপত্তা বলয়ের ব্যবস্থা করা হয়েছে। বিনোদন কেন্দ্রগুলোতে পর্যাপ্ত সংখ্যক আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য নিয়োজিত রয়েছেন। যে কোনো ধরনের নাশকতা এবং অপ্রত্যাশিত পরিস্থিতি মোকাবেলার আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী প্রস্তুত রয়েছে।’
চট্টগ্রাম নগরীর বাইরে মীরসরাইয়ের মহামায়া প্রকল্প, বাঁশখালী ইকো পার্ক, আনোয়ারা পারকি সমুদ্র সৈকত, সীতাকু-ের ইকো পার্ক ও গুলিয়াখালী সমুদ্র সৈকতেও প্রচুর দর্শনার্থী ভিড় জমিয়েছেন।

image_printPrint