চাঁদপুর শহরের বিকল্প লঞ্চঘাটের পাশেই নির্মিত হচ্ছে আধুনিক নৌ-টার্মিনাল

155

চাঁদপুর,১২ জুন ২০১৮ (বাসস) : শহরের মাদ্রাসা রোড়স্থ বিকল্প লঞ্চঘাটের পাশেই প্রায় শতকোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত হচ্ছে আধুনিক নৌ-টার্মিনাল। আধুনিক সুযোগ-সুবিধা সম্বলিত এ নৌ-টার্মিনালের প্রাথমিক কাজ সম্পাদনে ইতোমধ্যেই বিশ্বব্যাংকের অর্থায়নে এ প্রকল্পের জন্য ৬৬ কোটি টাকা ছাড় দিয়েছে সরকার।
সম্প্রতি এ প্রকল্পের অর্থযোগানদাতা বিশ্বব্যাংক ও সংশ্লিষ্ট বিভাগের উচ্চ পর্যায়ের একটি প্রতিনিধিদল চাঁদপুর নৌ-টার্মিনাল নির্মাণের স্থান পরিদর্শন করেছেন।
এসময় কর্মকর্তাগণ স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, প্রশাসন, রাজনীতিকসহ বিভিন্ন মহলের সাথে আলাপ-আলোচনা করেন এবং নৌ-টার্মিনাল নির্মাণের স্থান ও এর আশপাশ ঘুরে দেখেন। বিশ্বব্যাংক ও সংশ্লিষ্ট বিভাগের প্রতিনিধিদলের মধ্যে রয়েছেন, বিআইডব্লিউটিএ’র উপ-প্রধান প্রকৌশলী মো. ফরহাদুজ্জমান, আইমেরিটিয়ান প্রজেক্ট টিম লিডার ডা. ডেবিদাস বিধি, ভায়েন্স প্রাইভেট লিমিটেডের ম্যানেজার সন্তোস দাস, ইউনিকম ইন্টেলেক্স লিমিটেড-এর জেনারেল ম্যানেজার এসএম রাসেদুল ইসলাম। এছাড়াও স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও প্রশাসনিক কর্মকর্তাদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন চাঁদপুরের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মো. জামাল হোসেন, নৌ-পুলিশের এসপি সুব্রত কুমার হালদার, চাঁদপুর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও পৌর মেয়র নাছির উদ্দিন আহমেদ, চাঁদপুর বন্দর কর্মকর্তা আব্দুর রাজ্জাক, বিআইডব্লিউটিএ’র নির্বাহী প্রকৌশলী রবিউল ইসলাম, বিআইডব্লিউটিএ’র সহকারী পরিচালক (নৌ-নিরাপত্তা) শহীদুল ইসলাম, নৌ- থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রেজাউল করিম ভূইয়া পিপিএম প্রমুখ।
এ বিষয়ে চাঁদপুর বন্দর কর্মকর্তা আব্দুর রাজ্জাক জানান ও বিআইডব্লিউটিএ’র নির্বাহী প্রকৌশলী রবিউল ইসলামসহ প্রতিনিধিদলের সাথে কথা বলে জানা যায়, চাঁদপুর নৌ-টার্মিনালকে আধুনিকায়নের কাজ চলমান রয়েছে। তারই অংশ হিসেবে বিশ্বব্যাকের ফান্ডে বিআইডব্লিউটিএ’র এস-৩ প্রজেক্টের আওতায় শসানঘাট, চাঁদপুর, বরিশাল এবং নারায়ণগঞ্জ লঞ্চঘাটের টার্মিনাল আধুনিকায়নের কাজ যে তিনটি কোম্পানি পেয়েছে সেই কোম্পানির প্রতিনিধিগণ সোমবার চাঁদপুর নৌ- টার্মিনাল পরিদর্শন করেছেন। তারা স্থান পরিদর্শনে পাশাপাশি সংশ্লি¬ষ্ট স্থানীয়দের চাহিদা এবং সমস্যা কি রয়েছে তা নির্ণয় করে একটি মাস্টার প্ল্যান করবেন। এ মস্টার প্ল্যানের মধ্যে আধুনিক নৌ-টার্মিনালের কোথায় কি হবে তার একটি ম্যাপ তৈরি করে আবারো সবার সাথে আলাপ-আলোচনা করে প্রকল্পের পূর্ণাঙ্গ ম্যাপ করা হবে।
চাঁদপুর বন্দর কর্মকর্তা আব্দুর রাজ্জাক জানান, প্রকল্পটি বাস্তবায়নে একশত কোটি টাকা খরচ হতে পারে। এ প্রকল্পের আওতায় প্রাথমিক পর্যায়ে সরকার ৬৬ কোটি টাকা ছাড় দিয়েছে। তবে কাজ শুরু হলে এর নির্মাণ ব্যায় আরো বাড়তে পারে। এ প্রকল্পের মধ্যে রয়েছেন, জমি অধিগ্রহণ, জমি উন্নয়ন, ৩ তলা বিশিষ্ট আধুনিক নৌ-টার্মিনাল ভবন নির্মাণ, সেখানে ৪টি পল্টুন, ৩টি গ্যাংওয়ে, ৩টি র্যাম ও ২২টি স্পাত, ২টি আরসিসি জেটি এবং ২টি স্টিল থাকবে। এছাড়াও লঞ্চঘাটে যানচলাচলে দুটি আলাদা সড়ক ৩০ ফুট প্রশস্ত করা হবে।

image_printPrint