ইচ্ছাকৃতভাবে ঋণ খেলাপিদের বিরুদ্ধে সরকার কঠোর অবস্থানে : আ হ ম মুস্তফা কামাল

426

সংসদ ভবন, ২৮ এপ্রিল, ২০১৯ (বাসস) : অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেছেন, যারা ইচ্ছাকৃতভাবে ঋণ খেলাপি হয়েছে তাদের বিরুদ্ধে সরকার কঠোর অবস্থানে ।
তিনি আজ সংসদে গণফোরামের সদস্য মোকাব্বির খানের এক সম্পূরক প্রশ্নের জবাবে এ কথা বলেন।
অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের দেশে দেউলিয়া আইন এবং ব্যাংক আর্বিটেশন কার্যকর ছিল না। সেই জন্য একবার ব্যাংকে ঢুকলে সেখান থেকে আর বের হবার পথ ছিল না। তাই আমরা আইনগুলো কার্যকর করে সেই আইনি প্রক্রিয়ায় সহনীয় পরিস্থিতি তৈরি করছি।’
তিনি বলেন, এটা স্বতঃসিদ্ধ, সবাই জানি যদি ব্যাংকিং খাত স্বাভাবিকভাবে চলতে না পারে এবং যদি ঋণের ভারে জর্জরিত হয়ে যায়। আর যদি নন পারফর্মিং লোনের পরিমাণ বেড়ে যায়, তাহলে অর্থনীতির গতিশীলতা বাধাগ্রস্ত হবে।
মুস্তফা কামাল বলেন, ‘নন পারফর্মিং লোন তখনই বেড়ে যায়, যখন লোন নিয়ে পরিশোধ করতে করা হয় না । নন পারফর্মিং লোন হওয়ার কারণে সুদের হার অনেক বেশি। যখন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, শিল্প কারখানা ঋণ পরিশোধ করতে পারে না, তখন সেখানে সঙ্গত কারণেই খেলাপি হয়ে যায়। আর ঋণ খেলাপি রেখে ব্যাংক শিটগুলোর এতোটাই দূর অবস্থার মধ্যে আছে, সেগুলোকে যদি পরিষ্কার না করি তাহলে এগুলো আরও খারাপ হয়ে যাবে।’
তিনি বলেন, আইনগুলো কার্যকর করে সেই আইনের প্রক্রিয়ায় সবাইকে একটা ইকুইটেবল পরিস্থিতি তৈরি করা হবে। সকল ব্যবসায়িকে জেলে পাঠিয়ে দিয়ে দেশের অর্থনীতি চালানো যাবে না। তবে আবার সবাইকে মাফও করা যাবে না। যারা ইচ্ছেকৃতভাবে খেলাপি হন তাদের বিরুদ্ধে অ্যাকশন অবশ্যই নিতে হবে।
সরকারি দলের সদস্য আব্দুল মান্নানের অপর এক সম্পূরক প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী বলেন, ঋণ খেলাপিদের সবাই এক নয়। অনেকে পরিস্থিতির শিকার হয়ে খেলাপি হন, আবার অনেকে ঋণই নেন না দেয়ার জন্য। তারা ইচ্ছাকৃতভাবে খেলাপি হয়। কয়েকটি ফার্মকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে এগুলো খতিয়ে দেখার জন্য।

image_printPrint