সুদানে বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলো জোট

73

কায়রো, ১৬ এপ্রিল, ২০১৯ (বাসস ডেস্ক) : সুদানে ক্ষমতাচ্যূত স্বৈরশাসক ওমর আল-বশির পরবর্তী সরকার গঠনে সম্প্রতি বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলো কয়েক দশকের বিভেদ ভুলে একটি শক্তিশালী জোট গঠন করেছে।এই জোটে তিনটি রাজনৈতিক গ্রুপ রয়েছে। গত সপ্তাহে ওমর আল-বশিরকে ক্ষমতাচ্যূত করে সেনাবাহিনী।
এই শক্তিশালী জোটটি বশিরকে ক্ষমতাচ্যূত করার লক্ষ্যে শক্তিশালী বিক্ষোভ গড়ে তুলেছিল।
খবর বার্তা সংস্থা এএফপি’র।
বশিরের তিন দশকের শাসন আমলে সুদানে ইসলামপন্থী, বামপন্থী ও অন্যান্য আদর্শ মিলিয়ে প্রায় ১শ’টি রাজনৈতিক দল সক্রিয় ছিল।
বর্তমানে অন্তবর্তীকালীন সামরিক পরিষদ পরবর্তী দুই বছর দেশটির নীতি নির্ধারণ করবে।
প্রবীণ সাংবাদিক মাহজুব মোহম্মদ সালেহ (৯১) সুদানের বিরোধীজোট সম্পর্কে প্রশ্ন তুলে বলেন,‘সুদানের প্রধান বিরোধী দলগুলো প্যারিস ভিত্তিক নিদা সুদান, ন্যাশনাল কনসেনশাস ফোর্স ও সুদানিজ প্রোফেশনালস অ্যাসোসিয়েশন এর মাধ্যমে জোটবদ্ধ হয়েছে।’
বাশারের শাসন আমলে এই সাংবাদিককে কয়েকবার কারাগারে পাঠানো হয়।
তৃদলীয় জোটটি অ্যালাইয়েন্স ফর ফ্রিডম অ্যান্ড চেঞ্জ হিসেবে পরিচিত।
নিদা সুদানের মধ্যে উম্মা পার্টি ও সুদানিজ কংগ্রেস পার্টির পাশাপাশি সুদান পিপলস’ লিবারেশন মুভমেন্টের মতো সশস্ত্র দলও রয়েছে। এই দলগুলোর সমন্বয়ে নিদা সুদান গঠিত হয়েছে।
অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিগ্রীধারী সাদিক আল-মাহদির উম্মা পার্টির নেতৃত্ব দিচ্ছেন। তিনি ১৯৬০ ও ১৯৮০’র দশকে দুই দফা প্রধানমন্ত্রী ছিলেন। বশিরের ১৯৮৯ সালের অভ্যুত্থানে তিনি ক্ষমতাচূত হন। কায়রোতে এক বছর স্বেচ্ছা নির্বাসিত থাকার পর চলতি বছর তিনি সুদানে ফিরে আসেন।
এদিকে সুদানিজ কমিউনিস্ট পার্টি ও বাথ পার্টির পাশাপাশি অন্যান্য বামপন্থীদের সমন্বয়ে ন্যাশনাল কনসেনশাস ফোর্স গঠিত হয়েছে।
সবশেষে তরুণ, শহুরে শিক্ষিত, শিক্ষক, চিকিৎসক, প্রকৌশলী ও বুদ্ধিজীবীদের নিয়ে সুদানিজ প্রফেশনালস অ্যাসোসিয়েশন (এসপিএ) গঠিত হয়েছে।
১৮ ডিসেম্বর থেকে বশির বিরোধী বিক্ষোভে এই শিক্ষিত ও তরুণরাই ছিলেন প্রধান চালিকাশক্তি। এরা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে মানুষকে আন্দোলনে যোগ দেয়ার আমন্ত্রণ জানিয়ে হাজার হাজার মানুষকে জড়ো করেন।

image_printPrint